Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সিটিজেন চার্টার

গ্রাহক সেবা নির্দেশিকা

 

 

 

 

এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র

ফরিদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ‘‘এক অবস্থানে সেবা’’ কেন্দ্রে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ/বিদ্যুৎ বিভ্রাট/বিল/মিটার সংক্রান্ত অভিযোগ, বিল পরিশোধের ব্যবস্থাসহ সকল ধরনের অভিযোগ জানানো যাবে এবং এতদসংক্রান্ত বিষয়ে তথ্য পাওয়া যাবে।

নতুন সংযোগ গ্রহন

·       ‘‘এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র ’’ থেকে নতুন সংযোগের আবেদন পত্র পাওয়া যাবে।

·       আবেদনপত্রটি যথাযথভাবে পূরন করে নির্ধারিত আবেদন ফি অত্র দপ্তরের ক্যাশ শাখায়  জমা প্রদান করে জমা রশিদ ও প্রয়োজনীয় দলিলাদি সহ ‘‘এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র ’’-এ জমা করলে আপনাকে একটি নিবন্ধন নম্বরসহ পরবর্তী আগমনের তারিখ জানানো হবে।

·       পরবর্তী আগমনের তারিখে যোগাযোগ  করলে আপনাকে ডিমান্ড নোট  ইস্যু করা হবে। ‘‘এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র ’’ সংলগ্ন অত্র দপ্তরের ক্যাশ শাখায় ডিমান্ড নোটের উল্লিখিত টাকা জমা প্রদান করে ওয়্যারিং সম্পন্ন পূর্বক অবহিত করলে সমিতি কর্তৃক ওয়্যারিং পরিদর্শন পূর্বক সংযোগ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যদি সংযোগ প্রদান সম্ভবপর না হয় তবে কারণ জানিয়ে আপনাকে একটি পত্র দেয়া হবে।

·       পরবর্তী মাসের বিলিং সাইকেল  অনুযায়ী গ্রাহকের প্রথম মাসের বিল জারী করা হবে।

·       ‘‘এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র ’’ থেকে নতুন সংযোগ গ্রহনের নিয়মাবলী ও এতদসংক্রান্ত প্রয়োজনীয় তথ্যাবলী সম্বলিত একটি পুস্তিকা  প্রয়োজন বোধে নির্ধারিত মূল্য পরিশোধ সাপেক্ষে সংগ্রহ করা যাবে।

বিল সংক্রান্ত অভিযোগ

বিল সংক্রান্ত যে কোন অভিযোগ যেমনঃ চলতি মাসের বিল পাওয়া যায়নি, বকেয়া বিল, অতিরিক্ত বিল ইত্যাদির জন্য  ‘‘এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র ’’ এ যোগাযোগ করলে তাৎক্ষনিক সমাধান সম্ভব হলে তা নিষ্পত্তি করা হবে। অন্যথায় একটি নিবন্ধন নম্বর দিয়ে পরবর্তী যোগাযোগের সময় জানিয়ে দেয়া হবে এবং পরবর্তী ৭(সাত) দিনের মধ্যে নিষ্পত্তির ব্যবস্থা নেয়া হবে।

·      ‘‘এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র ’’ সংলগ্ন অত্র পবিস এর ক্যাশ শাখায়/বোয়ালমারী জোনাল অফিস/নগরকান্দা জোনাল অফিস/নির্ধারিত ব্যাংক এ গ্রাহক বিল পরিশোধ করতে পারবেন।

                 

বিদ্যুৎ বিভ্রাটের অভিযোগ

ফরিদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির  সকল ‘‘অভিযোগ কেন্দ্র’’ অথবা ‘‘এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্র ’’ এবং জোনাল অফিস ও এরিয়া অফিস এ আপনার বিদ্যুৎ বিভ্রাটের অভিযোগ জানানো হলে আপনাকে অভিযোগ নম্বর ও নিষ্পত্তির সম্ভাব্য সময় জানিয়ে দেয়া হবে। অভিযোগ নম্বরের ক্রমানুসারে আপনার বিদ্যুৎ বিভ্রাট দূরীভূত করার লক্ষ্যে ২৪ ঘন্টার মধ্যে নিষ্পত্তির ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোন ক্ষেত্রে যদি নির্ধারিত সময়ে বিদ্যুৎ বিভ্রাট দূরীভূত করা সম্ভব না হয়, তার কারন গ্রাহক কে অবহিত করা হবে।

অগ্রীম বিল পরিশোধ পদ্ধতি

গ্রাহক বিদ্যুৎ বিলের বিপরীতে সমিতির সদর দপ্তর ও জোনাল অফিসে নিম্নোক্ত নিয়মে অগ্রীম বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করতে পারবেন।

(ক) সমিতির নির্ধারিত ফরমে অগ্রীম জমা প্রদানের জন্য আবেদন করতে হবে।

(খ) ন্যূনতম তিন মাসের গড় বিলের সম পরিমান অর্থ পরবর্তী শত টাকায় রাউন্ড আপ করে অগ্রীম হিসাবে পরিশোধ করতে হবে।

(গ) গ্রহনকৃত অগ্রীম  হতে প্রতি মাসে বিদ্যুৎ বিল সমন্বয় করে পরিশোধিত সিল প্রদান করে গ্রাহককে বিলকপি প্রদান করা হবে এবং গ্রহনকৃত অগ্রীম নিঃশেষ হলে পুনরায় অগ্রীম জমা প্রদান করতে হবে।

(ঘ) বিদ্যুৎ এর রেট বৃদ্ধি পেলে প্রযোজ্য তারিখ থেকে নির্ধারিত রেটে বিল করা হবে।

ফরিদপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি

কানাইপুর, ফরিদপুর।

 

গ্রাহক সেবা নির্দেশিকা

 

টেলিফোন নম্বর সমূহঃ-

 

০১।           দপ্তর প্রধানঃ- ০৬৩১-৬২৩৬৪

০২।           সদর দপ্তর অভিযোগ কেন্দ্রঃ ০১৯৭৪-১০০২৯৯                                     

             

০৩।          বোয়ালমারী জোনাল অফিসের অভিযোগ কেন্দ্রঃ-

                                ০৬৩২৪-৫৬২৬৭/০১৯৭৪-১০০২৯৭ নগরকান্দা জোনাল অফিসঃ- ০১৯৭৪-১০০২৯৫

 

০৫।           আলফাডাঙ্গা এরিয়া অফিসঃ- ০১৯৭৪-১০০২৯৬

 

০৬।          মধুখালী এরিয়া অফিসঃ- ০১৯৭৪-১০০২৮৯

 

০৭।           ভাঙ্গা অভিযোগ কেন্দ্রঃ- ০১৯৭৪-১০০২৯৪

 

০৮।          পুলিয়া অভিযোগ কেন্দ্রঃ- ০১৯৭৪-১০০২৯৩

 

০৯।           চরভদ্রাসন অভিযোগ কেন্দ্রঃ- ০১৯৭৪-১০০২৯২

 

১০।           তালমা অভিযোগ কেন্দ্রঃ- ০১৯৭৪-১০০২৯১

 

১১।           টেপাখোলা অভিযোগ কেন্দ্রঃ- ০১৯৭৪-১০০২৯০

 

১১।           সালথা অভিযোগ কেন্দ্রঃ-

 

১২।           এক অবস্থানে সেবা কেন্দ্রঃ- ০৬৩১-৬৪১৬৪

                                                     (পিএবিএক্স)

ফ্যাক্স নম্বরঃ- ০৬৩১-৬২৩৬৪

 

ই-মেইলঃ- faridpur_pbs@hotmail.com

বিদ্যুৎ ব্যবহারে মিতব্যয়ী হোন

এনার্জি সেভিং বাল্ব ব্যবহার করুন

 

 

   

             

 

 
 
 

 


                উত্তম গ্রাহক সেবাই আমাদের লক্ষ্য

                                                    


গ্রাহক সেবা নির্দেশিকা

 

নতুন সংযোগের জন্য দলিলাদি

 

নতুন সংযোগের জন্য আবেদনপত্রের সাথে নিম্নোক্ত দলিলাদি দাখিল করতে হবেঃ-

·       সংযোগ গ্রহনকারীর পাসপোর্ট সাইজের ২(দুই) কপি সত্যায়িত রঙ্গিন ছবি।

·       জমির মালিকানা দলিলের সত্যায়িত কপি।

·       ইউনিয়ন পরিষদ/পৌরসভা কর্তৃক বাড়ীর অনুমোদিত সত্যায়িত নক্সা এবং নামজারীসহ হোল্ডিং এর সত্যায়িত কপি ও দলিল অথবা দাগ নম্বর, খতিয়ান নম্বর, জমির দলিল, চেয়ারম্যান/কমিশনারের সার্টিফিকেট (যেখানে নক্সা অনুমোদন নাই) ।

·       লোড চাহিদার পরিমান।

·       জমি/ভবনের ভাড়ার (যদি প্রযোজ্য হয়) দলিল।

·       ভাড়ার ক্ষেত্রে মালিকের সম্মতি পত্রের দলিল।

·       পূর্বের কোন সংযোগ থাকলে ঐ সংযোগের বিবরণ ও সর্বশেষ পরিশোধিত বিলের কপি।

·       অস্থায়ী সংযোগের ক্ষেত্রে বিবরণ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।

·       ট্রেড লাইসেন্স (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।

·       সংযোগ স্থানের নির্দেশক  নক্সা।

·       শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের নিমিত্তে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ।

·       সেচ কমিটির ছাড়পত্র।

·       পাওয়ার ফ্যাক্টর ইমপ্রুভমেন্ট প্লান্ট স্থাপন (শিল্পের ক্ষেত্রে)।

·       সার্ভিস ড্রপ এর দৈর্ঘ্য  ১০০ ফুট বেশী হবে না।

·       বহুতল আবাসিক/বানিজ্যিক ভবন নির্মাতা ও মালিকের সাথে ফ্ল্যাট মালিকের চুক্তিনামার সত্যায়িত কপি্।

·       সিঙ্গেল লাইন ডায়াগ্রাম ।

·       মিটারিং কক্ষ প্রদানের অঙ্গীকারনামা (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) ।

·       উপকেন্দ্রে স্থাপিত সব যন্ত্রপাতির স্পেসিফিকেশন ও টেষ্ট রেজাল্ট এবং বৈদ্যুতিক উপদেষ্টা ও প্রধান বিদ্যুৎ পরিদর্শকের দপ্তর থেকে প্রদত্ত উপকেন্দ্র সংক্রান্ত ছাড়পত্র।

শিল্প কারখানা ও ৬ তলার অধিক ভবনে সংযোগের জন্য গ্রাহককে আরও যে দলিলাদি দাখিল করতে হবেঃ-

·       পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।

·       ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এর ছাড়পত্রের কপি ।

 

নতুন সংযোগের সমীক্ষা ফি

 

ক্রঃ  নং

বিবরণ

অফেরতযোগ্য সমীক্ষা ফি (টাকা)

বাড়ী /বাণিজ্যিক/দাতব্য প্রতিষ্ঠান বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য একক ও দলগত আবেদনের ক্ষেত্রেঃ

 

 

(ক) একক আবেদনের ক্ষেত্রে

১০০.০০

 

(খ) ২ হইতে ৯জন পর্যন্ত আবেদনের ( জনপ্রতি) ক্ষেত্রে

১০০.০০

 

(গ) ১০ হইতে ১০জন পর্যন্ত গ্রুপ সম্বলিত আবেদনের ক্ষেত্রে

( নির্ধারিত )

১৫০০.০০

 

(ঘ) ২১জন ও তদুর্দ্ধে  গ্রুপ সম্বলিত আবেদনের ক্ষেত্রে ( নির্ধারিত )

২০০০.০০

সেচ সংযোগের জন্য

২৫০.০০

যে কোন ধরনের অস্থায়ী সংযোগের জন্য

১৫০০.০০

উপরে বর্ণিত সংযোগ ও শিল্প প্রতিষ্ঠান ব্যতীত অন্য কোন সাময়িক/স্থায়ী সংযোগের জন্য

১৫০০.০০

পোল স্থানান্তর/ লাইন রুট পরিবর্তন/ সমিতি কর্তৃক স্থাপিত অন্য গ্রাহকের সার্ভিস ড্রপ স্থানান্তরের আবেদনের জন্য

৫০০.০০

শিল্প প্রতিষ্ঠানের সংযোগের জন্য ( জি, পি)

২৫০০.০০

বৃহৎ  শিল্প প্রতিষ্ঠানের সংযোগের জন্য ( এল পি)

৫০০০.০০

লোড বৃদ্ধির জন্য (০-১০) কিঃ ওঃ

 

১০০০.০০

 

 

( ১১-৪৫) কিঃ ওঃ

২০০০.০০

 

(৪৬ থেকে তদৃর্ধ) কিঃ ওঃ

৫০০০.০০

 

                    

নতুন সংযোগের জন্য জামানতের পরিমান

 

ক্রঃ নং

গ্রাহক শ্রেনী

লোডের বিবরণ/নিরাপত্তা জামানত নিরুপনের পদ্ধতি

নিরাপত্তা জামানত ( টাকা)

টাকা

আবাসিক,

বানিজ্যিক

দাতব্য প্রতিষ্টান

 

 

 

বানিজ্যিক

বানিজ্যিক

০.৫০ কিঃ ওঃ পর্যন্ত লোড

৫০০.০০

০.৫০ কিঃ ওঃ  এর উর্ধ্বে এবং ১ কিঃ ওঃ পর্যন্ত

৬০০.০০

১ কিঃ ওঃ এর উর্ধ্বে

৬০০.০০ যোগ ২০০.০০ প্রতি কিঃ ওঃ অথবা প্রতি ভগ্নাংশের জন্য।

৫ কিঃ ওঃ  পর্যন্ত

৫ কিঃ ওঃ এর উর্ধ্বে

প্রতি কিঃ ওঃ ২৫৮৪.০০ টাকা

জি, পি/ এল পি

শিল্প

প্রতি কিঃ ওঃ ২১০৮.০০ টাকা

 রাস্তার বাতি

-

৬ ( ছয় ) মাসের নূন্যতম বিলের সম পরিমান।

বিঃ দ্রঃ যে কোন ধরনের সরকারী প্রতিষ্ঠান হতে লীজ গ্রহনকৃত জমিতে স্থাপিত স্থাপনায় সংযোগ প্রদানের ক্ষেত্রে গ্রাহককে নিয়মানুযায়ী গ্যারান্টি ডিপোজিটের অতিরিক্ত হিসাবে প্রতি কিলোওয়াট বা অংশ বিশেষ লোড এর জন্য ১০০০.০০(এক হাজার) টাকা করে অতিরিক্ত গ্যারান্টি  ডিপোজিট প্রদান করতে হবে। তবে ব্যক্তিগত জমি লীজ গ্রহনের মাধ্যমে সংযোগের ক্ষেত্রে এর পরিমান হবে প্রতি কিলোওয়াট বা অংশ বিশেষ লোডের জন্য ৫০০.০০ ( পাঁচশত) টাকা । সকল ক্ষেত্রে অনুমোদিত লোডের উপরে আলোচ্য ডিপোজিট আদায়যোগ্য হবে।

 

·       সেচ সংযোগের ক্ষেত্রে জামানতের পরিবর্তে অগ্রিম বিদ্যুৎ বিল জমা দিতে হবে।

·       অগভীর নলকুপ ও এল এল পি এর ক্ষেত্রে প্রতি অশ্বশক্তি ৬২৫.০০ টাকা হিসাবে তবে ৩,০০০/- টাকার কম নয়।

·       গভীর নলকূপের ক্ষেত্রে প্রতি অশ্বশক্তি ১,০০০/- টাকা হিসাবে।

·       ষ্ট্রীট লাইট এর ক্ষেত্রে ৬ মাসের ন্যূনতম বিদ্যুৎ বিল অর্থাৎ ৩০৯x৬ = ১৮৫৪/- টাকা।

·       জি.পি এর ক্ষেত্রে চুক্তিবদ্ধ লোড প্রতি কিঃ ওঃ ২১০৮.০০ টাকা হিসাবে ।

*     এল পি এর ক্ষেত্রে চুক্তিবদ্ধ লোড প্রতি কিঃ ওঃ ২১০৮.০০ টাকা হিসাবে।

অফেরযোগ্য জামানত

শুধুমাত্র ধান/আটা/ময়দা কলের ক্ষেত্রে জামানত ছাড়াও অফেরতযোগ্য জামানত জমা দিতে হবে।

·        ১ ফেজ সংযোগের ক্ষেত্রে অফেরত যোগ্য জামানত প্রতি অশ্বশক্তি ৭৫০.০০ টাকা।

·        ৩ ফেজ সংযোগের ক্ষেত্রে অফেরতযোগ্য জামানত প্রতি অশ্বশক্তি = ১,৫০০.০০ টাকা ।

অস্থায়ী বিদ্যুৎ সংযোগ

·       ধর্মীয় অনুষ্ঠান, মেলা , আনন্দ মেলা এবং রাস্তা, ব্রীজের নির্মাণ কাজের জন্য অস্থায়ী বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা যাবে। কিন্তু চলমান নির্মাণ কাজ সম্পন্ন বাড়ী, শিল্প অথবা কমপ্লেক্সে অস্থায়ী সংযোগ প্রদান করা যাবে না। এ সংযোগ শুধুই অস্থায়ী ভিত্তিতে যা কখনই স্থায়ী সংযোগে পরিবর্তন করা যাবে না। এ ধরনের সংযোগের জন্য নিম্নলিখিত শর্ত ও পদ্ধতি অনুসরন করতে হবে।

(ক)  এ সংযোগের জন্য প্রয়োজনীয় সকল মালামালের বুক ভ্যালুর শতকরা 

      ১১০ ভাগ মূল্য গ্রাহককে অগ্রীম জমা প্রদান করতে হবে (ট্রান্সফরমার, লাইটনিং এ্যারেষ্টার, ফিউজ কাট আউট, মিটার এবং মিটার সকেট  ব্যতিত) কার্য সম্পন্নের পর উক্ত মালামাল ব্যবহারের উপযুক্ত হলে ১০০% মালামালের মূল্য ফেরৎ  প্রদান করা হবে।

(খ)  এ সংযোগ সুবিধা সৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় শ্রমিকের মজুরী এবং বিচ্ছিন্ন ও সংযোগ ফি অগ্রীম জমা প্রদান করতে হবে।

(L)    সার্ভিস চুক্তি অনুযায়ী নির্ধারিত সময়ে ব্যবহৃত বিদ্যুতের প্রাক্কলিত মূল্য জিপি রেট সিডিউল অনুযায়ী

·       উপরোক্ত বর্ণনানুযায়ী অর্থ ছাড়াও নীতি নির্দেশিকা মোতাবেক প্রযোজ্য ক্ষেত্রে লাইন নির্মাণ/ লাইন রুপান্তর/পরিবর্তন ব্যয় গ্রাহককে বহন করতে হবে।

লোড পরিবর্তন

·       লোড বৃদ্ধির জন্য সমীক্ষা ফি দিয়ে আবেদন করতে হবে।

·       লোড বৃদ্ধির ক্ষেত্রে বর্ধিত লোডের জন্য শ্রেনী ভিত্তিক প্রযোজ্য জামানত প্রদান করতে হবে।

·       অতিরিক্ত লোড বৃদ্ধির জন্য সার্ভিস তার/ট্রান্সফরমার বদলানোর প্রয়োজন হলে উক্ত ব্যয় গ্রাহককে বহন করতে হবে।

·       প্রাক্কলন ও জামানতের অর্থ জমাদানের ৭ দিনের মধ্যে লোড বৃদ্ধি কার্যকর করা হবে। যদি লোড বৃদ্ধি করা সম্ভবপর না হয় তবে তার  কারন জানিয়ে গ্রাহককে একটি পত্র দেয়া হবে।

গ্রাহকের নাম পরিবর্তন পদ্ধতি

গ্রাহক ক্রয় সূত্রে/ওয়ারিশ সূত্রে জায়গা বা প্রতিষ্ঠানের মালিক হলে সকল দলিলের সত্যায়িত ফটোকপি ও পরিশোধিত বিলের কপি প্রযোজ্য ক্ষেত্রে ট্রেড লাইসেন্স, আর্টিক্যাল অব মেমোরন্ডম, পার্সপোর্ট সাইজের ০২(দুই) কপি সত্যায়িত রঙ্গিন ছবি সহ আবেদন করতে হবে। সরেজমিন তদন্ত সাপেক্ষে মালিকানা পরিবর্তন ফি জমা প্রদান সাপেক্ষে ৭(সাত) দিনের মধ্যে মালিকানা পরিবর্তন করা হবে।

 

 

 

 

অবৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহার, মিটারে হস্তক্ষেপ, বাইপাস, বিনা অনুমতিতে সংযোগ গ্রহন ইত্যাদি ক্ষেত্রে আইনগত ব্যবস্থা

 

বিদ্যুৎ আইনের [Electricity Act, 1910 5 as Amended – The Electricity (Amendment) Act, ২০০৬]৩৯ ধারা অনুসারে এ ক্ষেত্রে ন্যূনতম ১ বছর হতে ৩ বছর পর্যন্ত জেল এবং ১০ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রয়েছে। তাছাড়া, অবৈধভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য  সমিতির নীতিমালা অনুসারে সাধারণ জরিমানা ও ক্ষতিগ্রস্থ বিল প্রদান করতে হবে। এছাড়াও উক্ত বিদ্যুৎ ব্যবহারের দ্বারা যদি বিদ্যুৎ সরবরাহ সংস্থার বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম, মিটার মিটারিং ইউনিট ইত্যাদি ক্ষতিগ্রস্থ হয় তবে ক্ষতিগ্রস্থ বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম, মিটার, মিটার ইউনিট ইত্যাদি পুনরায় সচল করা গেলে ৫০% মূল্য এবং স্থাপন ব্যয় অথবা সম্পূর্ন ধ্বংসপ্রাপ্ত বা পুনরায় সচল করা যাবে না এরুপ সরঞ্জামের জন্য পুনঃ স্থাপনের  ব্যয় সহ প্রকৃত মূল্য আদায় করা হবে।

অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন